নরম মাংসের সমুদ্র

সকালের ঘুমটা বুঝি আসলেই খুব মধুর। খুব সহজে ঘুমটা ভাঙতে চায় না। অমার অতি আদরের বউ অম্মৃতা কখন যে বিছানা ছেড়ে গিয়েছে, টেরই পাইনি। তার চেঁচামেচি গলাতেই ঘুমটা আমার ভাঙলো। রান্না ঘর থেকেই অম্মৃতার চেঁচামেচি গলা শুনতে পাচ্ছিলাম, আর কত ঘুমাবে? বেলা কত হয়েছে টের পাচ্ছো? সুপ্তাকে নাস্তাটাও তো আমি খাইয়ে দিলাম। সুপ্তার স্কুলে যাবার সয়ম হয়ে গেছে। গোসলটা অন্ততঃ করিয়ে দাও। আমার হাতে কত কাজ! স্কুলের সময় হয়ে যাচ্ছে বলে, মেয়েটা শেষ পর্য্যন্ত একা একাই বাথরুমে গিয়ে ঢুকেছে। সুপ্তাকে গোসল করাতে হবে ভাবতেই, আমার লিঙ্গটা হঠাৎই কেমন যেনো চর চর করে উঠলো। সুপ্তা, আমার একমাত্র আদরের মেয়ে। বাড়ন্ত দেহ, তার বাড়ন্ত দেহটা দেখলে হঠাৎই মনে হবে পূর্ণ এক যুবতী। কিন্তু না, সুপ্তা মাত্র ক্লাশ এইটে পড়ে। কোন ক্লাশে ফেল করে যে এইটে আছে, তা ও নয়। এমন বাড়ন্ত দেহের মেয়ে অনেকেই হয়। আমার মেয়েটিও তাই। বুকের উপর ই কাপ সাইজের দুটি দুধ। চোখে পরলেই দেহটা শুধু উষ্ণ হয়ে উঠে। আমি লাফিয়ে উঠলাম বিছানা থেকে। ছুটতে ছুটতে গেলাম বাথরুমটার দিকেই। বাথরুমে চুপি দিয়ে দেখলাম বাথটাবের পানিতে মন খারাপ করেই বসে আছে সুপ্তা। আমি বললাম, স্যরি মামণি। গত রাতে তোমাকে আদর করতে গিয়ে, ঘুমটা এমনি পেয়েছিলো যে। সুপ্তা বাথটাবে উঠে দাঁড়ালো। অভিমান করে অন্যত্র তাঁকিয়ে থেকে বললো, থাক, তোমাকে গোসল করিয়ে দিতে হবে না। আমি নিজে নিজেই পারি। আমি দেখলাম, সুপ্তার পরনে শুধু গোলাপী রং এর খুবই পাতলা একটা সেমিজ। এমন একটা সেমিজে গায়ের সব লোমকূপগুলোও চোখে পরে। হঠাৎ রাগ করে দাঁড়ানোতে, বাম ঘাড়ের উপর থেকে স্লীভটাও খসে পরে, বাম স্তনটাকে পুরুপুরি নগ্ন করেই রেখেছে।খুবই খাড়া একটা স্তন। আমার লিঙ্গটা কঠিন হয়ে শুধু টন টন করতে থাকে। এমন একটা মেয়েকে গোসল করাতে গিয়ে আমি নিজেকে সামলে রাখতে পারি না। তারপরও, নিজ কন্যা। একটু আহলাদী। আমি নিজেকে সামলে নিতে থাকি। বাথটাবের পানিতে আমিও নামি। সাবানটা হাতে নিয়ে, তার নগ্ন স্তনটাতেই মাখাতে থাকি। তার মিষ্টি ঠোটে একটা চুমু দিয়ে বলি, আবারো রাগ করে আছো? সুপ্তা মিষ্টি করেই হাসে। আহলাদী গলাতেই বলে, না, স্কুলের সময় হয়ে যাচ্ছিলো। তাই ভাবলাম, বাথটাবের পানিতে একটু ভিজে থেকে গোসলটা সেরে ফেলি। আমি সুপ্তার ভরাট স্তন দুটিতে সাবান মাখাতে মাখাতে, তার বাম স্তনের খানিক স্থুল হয়ে উঠা বোটাটা টিপে নেড়ে নেড়ে আদর করে বললাম, শুধু গা ভিজালেই কি গোসল হয়ে যায়? গায়ে সাবান মাখাতে হয়। ঘামগুলো সব ধুয়ে মুছে ত্বকগুলো তকতকে করে নিতে হয়। সুপ্তা আহলাদী গলায় বললো, আমি ওসব পারি নাকি? আমি সুপ্তার সারা দেহে সাবান মাখিয়ে, তার পরনের সেমিজটাও নিম্নাঙ্গটার উপরে তুলে নিলাম। শুভ্র কচি কালো কেশের একটা যোনী। আমি সেখানেও সাবান মাখিয়ে দিতে থাকলাম। থেকে থেকে আমার আঙুলটা তার যোনীর ভেতরই চলে যাচ্ছিলো। আর, সুপ্তার যেনো এটাই খুব পছন্দ! সুপ্তা স্কুলে চলে যায় সুপ্তার মতো করেই। আমার লিঙ্গটা কঠিন খাড়া হয়ে থাকে। শুধু এক প্রকার আগুন জ্বলতে থাকে। বসার ঘরে এসে চেঁচিয়ে ডাকতে থাকি, অম্মৃতা, অম্মৃতা! অম্মৃতা তার সমস্ত কাজ ফেলে এসে সোফাটার উপর পা তুলেই বসে। হাসিটা ঠোটে রেখেই বলে, কি হলো? এতো চেঁচা মেচি করে ডাকার কি হলো? আমার পরনে তখন কিছুই থাকে না। নগ্ন লিঙ্গটা ইশারা করেই বলি, দেখো, এটার কি অবস্থা? অম্মৃতা আঁড় চোখেই তাঁকায় আমার লিঙ্গটার দিকে। খিল খিল করা চাপা একটা হাসিই হাসে। বলতে থাকে, ওটা কি নুতন কিছু? সকালে তো ডেকেই ছিলাম। তুমি তো এ কাৎ থেকে ও কাৎ করে আবারো ঘুমিয়ে পরলে। আমি বললাম, এ কাৎ থেকে ও কাৎ নয়। তোমার ওই আহলাদী মেয়েকে গোসল করাতে গিয়ে আমার এটার এই অবস্থা হয়েছে। আমি পারবো না, ওই বাড়ন্ত দেহের একটা মেয়েকে গোসল করাতে। এই বলে অম্মৃতার পাশে গিয়েই বসতে চাইলামঅম্মৃতা আমার কাছ থেকে সরে গিয়ে পালানোরই চেষ্টা করলো। বললো, থামো, থামো, সুপ্তার দোষটা কি হলো? সুপ্তাকে গোসল করাতে গিয়ে তোমার ওটার এ অবস্থা হলো কেনো? আমি অম্মৃতার পেছনে ছুটতে ছুটতেই বললাম, ন্যাকামী করো, তাই না? বুঝো না? সুপ্তা কি সেই ছোট্ট মেয়েটি আছে? অম্মৃতা শোবার ঘরে গিয়েই ঢুকলো। বিছানার উপর বসে, পা দুটি খানিক সামনে ছড়িয়ে, হাত দুটি বিছানায় চেপে ধরে বললো, ছোট্ট মেয়ে কে বললো? ক্লাস এইটে পড়ছে। আমি অম্মৃতার সামনে দাঁড়িয়ে আবারো বললাম, তাহলেই বুঝো। অম্মৃতা বললো, কি বুঝবো? আমি বললাম, সুপ্তার দেহটা কি যেমন তেমন? খুব নরোম! অম্মৃতা খিল খিল করেই হাসলো। বললো, মেয়েদের দেহ তো নরোম থাকাই উচিৎ! তোমার আদরের কন্যার দেহটা যদি কাঠের মতো শক্ত হতো, তাহলে কি খুশী হতে? আমি বললাম, না, তা নয়। কিন্তু ওর বুক দুটি দেখেছো? কেমন বেলুনের মতো ফুলে ফেপে উঠেছে। দেখে তো মনে হয়, আর দুদিন পর, তোমার গুলোর সমানই হয়ে যাবে।অম্মৃতার পরনে ঘিয়ে রং এর একটা সেমিজ। সে তার সেমিজটা বুকের উপর তুলে, নীচ দিকের অস্তিনটা দাঁতে কামড়ে ধরে। তার পর তার সুবৃহৎ আই কাপ সাইজ এর স্তন দুটি প্রদর্শন করে বলতে থাকে, আমার সমান? সুপ্তার দুধ গুলো রাতারাতি এত বড় হয়ে গেলো? নিশ্চয়ই তুমি সুপ্তাকে ঘুম পারাতে গিয়ে টিপে টিপে বড় করে ফেলেছো। আমি রাগ করার ভান করেই বললাম, কি সব বাজে কথা বলছো? আমি সুপ্তার দুধ ছুয়ার আগে থেকেই তো অমন বড় ছিলো। ই কাপ বলায়, একজন তো বললো, দিদি নাকি? অম্মৃতাও রাগ করে বললো, কি বললে, আমার মেয়ের দুধের বর্ণনা তুমি অন্য কাউকে জানিয়েছো? আমি হঠাৎই সম্ভিত ফিরে পেলাম। অম্মৃতার পাশে বসে, তার সুদৃশ্য সুডৌল স্তন দুটিতে হাত বুলিয়ে বলতে থাকলাম, সুপ্তার দুধগুলো তোমার মতো অত বড়ও হয়নি, কাউকে বলিও নি। এমনি কথার কথা বললাম আর কি। অম্মৃতা বললো, তোমাকে বিশ্বাস নেই। সারা দিন রাত কম্পিউটারের সামনে বসে কি সব টাইপ করো, আমি ঘরে গিয়ে ঢুকলেই ভয় পেয়ে উঠ। মনে হয় কি যেনো লুকাচ্ছো। কম্পিউটারে নুতন একটা ফাইল খুলে ধরো, দুদিন আগেও ফাইলটার যতদূর দেখি, দুদিন পরও দেখি ফাইলটা ততদূরই। আমার কিন্তু খুব সন্দেহ হয়। আমি অম্মৃতার সমতল পেটটাতেও হাত বুলিয়ে, গভীর নাভীটাতে আঙুল চেপে বলি, কি রকম সন্দেহ? অম্মৃতা বললো, নিশ্চয়ই আমার নামে বন্ধুদের কাছে ব্লগে বদনাম করো। আমার বউটা খারাপ, বুড়ী হয়ে গেছে, ইত্যাদি, ইত্যাদি। আমি অম্মৃতার মিষ্টি ঠোটে একাট চুমু দিয়ে বলি, তুমি বুড়ী হলেই তো অমন লিখবো। বরং লিখি, তোমার মতো এমন সুন্দরী কোন মেয়ে এই পৃথিবীতেই নাই। শাবনুর, মাধুরী দিক্ষীত, এরা তোমার পায়ের নখের তুল্যও নয়। অম্মৃতা আমার দিকে প্রণয়ের দৃষ্টি মেলে তাঁকিয়েই বললো, তাহলে এসব লিখো? আমি আবারো অপ্রস্তুত হয়ে পরি। আমতা আমতা করেই বলি, আহা লিখবো কেনো? কথার কথা বললাম আর কি? আর লিখলেই কি কেউ তোমাকে চিনছে নাকি? আমরা কোথায় এই সাগর পারে পরে আছি, কেউ কি কখনো খোঁজে বেড় করতে পারবে নাকি? একজন তো সব সময়ই বলে, আপনার কথা কি সত্যিই। মনে তো হয় সব আজগুবী। বাংলাদেশে এমন মেয়ে আছে? এমন জায়গা আছে? আমি তখন কি বলি জানো? বলি সবই কাল্পনিক। তখন কেউ আর কিছু বলে না। অম্মৃতা দাঁতে দাঁত কামড়েই বললো, তার মানে তুমি লিখো, আমার কথা, সুপ্তার কথা। আমি আবারো অপ্রস্তুত হয়ে পরি। অম্মৃতার দুধ গুলোই আবারো টিপে টিপে ধরে বলি, এই, আজকে তো সকালের কাজটা হয়নি। চলো না, এখন করে ফেলি। অম্মৃতা চোখ পাকিয়েই বললো, ওহ, এখন করে ফেলি! তারপর কম্পিউটারে গিয়ে বসবে। বন্ধুদের জানাবে, আমি আজকে এমন করেই বউকে করেছি। আমি অম্মৃতার বাম স্তনের ডগায় আধ কাটা কিস মিস এর মতো স্তন বোটা দুটি টিপে, তার চতুর্পাশের প্রশস্ত খয়েরী বৃন্তটাতে আঙুল লেপে বললাম, ওসব আমি বন্ধুদের জানাতে যাবো কেনো? ওরা আমার চাইতেও অনেক ভালো খেলোয়ার। কেউ আমাকে পাত্তাই দিতে চায় না। অম্মৃতা তার বুকের উপর থেকে সেমিজটা টেনে নামিয়ে উঠে দাঁড়াতে চাইলো। বললো, তুমি তোমার কম্পিউটার এর সামনে গিয়ে বন্ধুদের সাথে পীড়ীতের আলাপ করো। আমার অনেক কাজ। অম্মৃতার দেহটা আমাকে পাগল করতে থাকে। আমি তার কোমরটা চেপে ধরি। আহত হয়ে বলি, দেখছো না, আমার এইটার কি অবস্থা? এত নিষ্ঠুর হবে তুমি? অম্মৃতা খিল খিল করেই হাসতে থাকে। বলতে থাকে, আমি তোমার মতো একটা পাগলকেই ভালোবেসে ছিলাম। আর আমাকে এত ভালোবাসা দিতে দিতে একেবারে ফতুর বানিয়ে ফেলছো। তোমাকে দেবার মতো আমার মনে আর এক টুকরো ভালোবাসাও নেই। আমি অম্মৃতার কোমরটা চেপে ধরে, তার দেহটা খানিক শূন্যে তুলে বিছানার উপর উবু করেই ফেললাম। বললাম, এক টুকরোও নেই? অম্মৃতা নিজ দেহের ভার সাম্যটা রক্ষা করে, কনুই আর হাঁটুর উপর ভর করে উবু হয়ে থেকে খিল খিল করেই হাসতে থাকলো। হাসতে হাসতেই বললো, তুমি আসলেই একটা পাগল।

Comments